সাজগোজ

এই শীতে ঠোঁটের যত্ন আত্তি! 

শীতের শুষ্ক আদ্রতা ঠোঁটের জন্য অনেক ক্ষতিকর। কেননা আমাদের ঠোঁটের স্কিন শরীরের অন্যান্য স্কিনের তুলনায় অনেক পাতলা হয়ে থাকে যার জন্য শীতে ঠোঁটের স্কিন খুব সহজেই ফাটা শুরু করে। এমনকি শীতে অনেকের ঠোঁট ফাটা রক্ত বের হতে থাকে। তাই ঠোঁটে যত্নে অবহেলা করা যাবেনা। কিছু ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করেই শীত থেকে রক্ষা করতে পারেন আপনার ঠোঁটকে। সেই সাথে ঠোঁটকে করতে পারেন সুন্দর ও আকর্ষণীয় করতে। ঘরোয়া পদ্ধতিতে রোজ যত্ন নিলে ঠোঁটের কালচে ভাব দূর হবে। তার সঙ্গে ঠোঁট হবে কোমল ও নরম। 
 
 
জেনে নিন কিভাবে নিবেন শীতে ঠোঁটের যত্ন- 
 

 

ঠোঁট জিভ দিয়ে ভেজাবেন না : 
 
ঠোঁটে হাত দেয়া অথবা ঠোঁট শুকিয়ে গেলে বারবার জিভ দিয়ে ঠোঁট ভেজানো মোটেও ঠিক নয়। এটি হয়তো কিছুক্ষণের জন্য আপনাকে আরাম দিবে, কিন্তু পরবর্তীতে সেই লালা যখন শুকিয়ে যাবে তখন ঠোঁটকে আরও ড্রাই করে ফেলবে। সেজন্য ঠোঁটে একটু বেশি করে ভ্যাসলিন লাগিয়ে রাখুন। নরম হলে টিস্যু দিয়ে হালকাভাবে ঘমেরা চামড়া তুলে ফেলুন। এরপর ভ্যাসলিন লাগিয়ে রাখুন। 
 
 
 
ঠোঁটের মেকআপ তুলে নেয়া : 
 
প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে ঠোঁটের লিপস্টিক খুব ভালোভাবে পরিষ্কার করে নিন। পুরো মুখ ভালো করে ধুয়ে গ্লিসারিন ও গোলাপজল মিশিয়ে লাগাতে পারেন। এতে ঠোঁটের শুষ্কতা কাটিয়ে ঠোঁট কোমল ও মসৃণ হয়ে উঠবে।  


 

নিজেকে হাইড্রেটেড রাখতে পানি পান করবেন : 
 
শীত গ্রীষ্ম সব সময় শরীরকে হাইড্রেটেড রাখা অত্যন্ত জরুরী। আপনার স্কিনের ভিতর থেকে হাইড্রেটেড হওয়া প্রয়োজন। এতে ঠোঁট ফাটার সমস্যা কমে যায়। 
 

 

 ঠোঁটের মাসাজ : 
 
নিয়মিত ঠোঁটে অ্যালমন্ড অয়েল বা অলিভ অয়েল দিয়ে মাসাজ করুন। এতে ঠোঁটে পুষ্টি গুন বাড়বে। ঠোঁটে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি হবে।  
 
 
 

নিয়মিত লিপ স্ক্রাব করুন : 
 
ঠোঁটের মরা চামড়া গুলো পরিষ্কার করতে স্ক্রাবের বিকল্প নেই। সেজন্য ১ চা চামচ চিনি ও ১ চা চামচ মধু দিয়ে সম্পূর্ণ ঠোঁটে স্ক্রাব করুন। এতে আপনার ঠোঁট থাকবে সুন্দর ও নরম। 
 

 

 
রাতের বেলা ঠোঁটের যত্ন : 
 
রাতে ঘুমালে বাতাসের সংস্পর্শে এসে ঠোঁটকে মারাত্মক ভাবে ড্রাই করে ফেলে সেজন্য ঘুমানোর আগে অবশ্যই ঘন লিপ বাম অথবা ভেসলিন দিয়ে ঘুমাবেন। 
 
 
 
এছাড়া  
 
১ চা চামচ দুধে ৫ ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে একদিন পরপর ঠোঁটে লাগালে ঠোঁট নরম থাকে। 
 
ঠোঁট ফেটে গেলে তার মরা চামড়া উঠলে সেটা হাত দিয়ে টেনে তুলতে যাবেন না। 
 
ঠোঁটে যত্নে গোলাপ জলের সাথে গ্লিসারিন মিশিয়ে কটন বল এর সাহায্য ঠোঁটে লাগাতে পারেন। 
 
ঠোঁটে সবসময় ব্র্যান্ডের লিপস্টিক ব্যবহার করবেন। এতে ঠোঁট ভালো থাকবে।  
 
যাদের ঠোঁট বেশি ড্রাই তারা লিকুইড ড্রাই লিপস্টিক ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকবেন। খুব বেশি প্রয়োজন হলে ড্রাই লিপস্টিক লাগানোর আগে ঠোঁটে ময়শ্চারাইজার লাগিয়ে নিবেন 
 
 
তারকালয়/১৫/১২/১৮/রুপা 
 

Previous ArticleNext Article