Uncategorized, সাজগোজ

স্ট্রেচ মার্কস দূর করার ঘরোয়া টিপস

পৃথিবীতে সব চেয়ে সুখের অনুভূতি হচ্ছে মা হওয়া। মা হওয়া থেকে ভালো অনুভূতি জীবনে আর নেই। কিন্তু মা হওয়ার পর ভাবতে হয় তার পরবর্তী তো, প্রেগন্যান্সির পরে মায়ের বুকে,তলপেটে যে বিচ্ছিরি স্ট্রেচ মার্কসগুলো মুখোমুখি হতে হয় টা ভাবতেই মন বিষণ্ণ হয়ে উঠে। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে সেগুলো চোখে পড়লে তখন নিজেকে নিজের কাছে বিরক্ত লাগে।

Tarokaloy_skin_care

হাজারো ক্রিম,মলম ব্যবহার করেও সেগুলো আর যাওয়ার নামই নিতে চায় না! সেই সাথে নামি দামি ব্র্যান্ডের প্রোডাক্ট ব্যবহার করলেও অনেক টাকার কথা ভেবে চিন্তে তারপর সিদ্ধান্ত নিতে হবে। সেই সাথে চিন্তার বিষয় সে সব ব্যবস্থা সুরক্ষা মূলক কি না!! কতো সব চিন্তার সমাহার তাই? কিন্তু দুঃখের কোনো কারণ নেই। আপনি ভাবছেন মজা করছি না তো কারণ এমন সময় চিন্তা কে না,করে! আপনাদের সুবিধার্থে তারকালয় নিয়ে এসে সমস্যার সমাধান। কারণ মা হওয়ার পরে আপনার আনন্দকে আরও হাজার গুণ বাড়িয়ে দিয়ে এবার আমরা ‘তারকালয়’ পক্ষ থেকে একটি নতুন প্রচেষ্টা। স্ট্রেচ মার্কস দুর করার ঘরোয়া টিপস।

Tarokaloy_skin_care

১. অয়েল ট্রিটমেন্ট
যে জায়গা টুকু জুড়ে স্ট্রেচ মার্কস সেখানে তেল দিয়ে ম্যাসাজ করলে বটে যাওয়া ত্বক নরম হয়ে আসবে এবং আসতে আসতে খানিক দাগ দূর হতে শুরু করবে এই হারবাল অয়েলের ম্যাসাজ টিপস মাফিক মেনে চললে।

তেল টি তৈরির উপকরণঃ
বাদাম তেল বা নারকেল তেল পরিমাণ মতো, গ্রেপ সিড অয়েল / ল্যাভেন্ডার অয়েল ইত্যাদি যে কোনো এসেনশিয়াল অয়েল কয়েক ফোঁটা।
তারপর সব ভালো মতো মিশিয়ে নিন। এরপর আপনার দাগের এরিয়াতে ৫-১০ মিনিট ম্যাসাজ করুন। রোজ নিয়ম করে করুন। দেখবেন দাগ আস্তে আস্তে হালকা হচ্ছে।

Tarokaloy_skin_care

২. অ্যালোভেরা
যে কোনো দাগ দূর করতে অ্যালোভেরা কোনো বিকল্প নেই । গর্ভাবস্থার পরের দাগকে দূর করতেও অ্যালোভেরা বিশেষ ভাবে কাজ করে। সেই সাথে অ্যালোভেরা জেল ত্বককে হাইড্রেট রাখতেও সাহায্য করে। তবে মনে রাখবেন শুধুমাত্র আর্লি স্টেজের স্ট্রেচ মার্কস দূর করতেই কিন্তু অ্যালোভেরা কাজে লাগে।

উপকরণঃ
ফ্রেশ অ্যালোভেরা জেল পরিমাণ মতো।

ফ্রেশ অ্যালোভেরা জেল দাগের জায়গায় ভালো করে লাগান যতক্ষণ না পর্যন্ত তা ত্বকের সাথে মিলিয়ে যায়।দিনে অন্তত দু’বার করে নিয়ম করে করুন। ভালো ফলাফল পাবেন।

৩. পেট্রোলিয়াম জেলি

আমরা সবাই জানি পেট্রোলিয়াম জেলি হল এক্সক্লুসিভ এজেন্ট,যা ত্বকের ময়েশ্চার লক করতে সাহায্য করে।ড্রাই আর স্ট্রেচ মার্কসকে দূর করতে তাই এটা ব্যবহার করা যথা সম্ভব উচিত।

উপকরণঃ
পেট্রোলিয়াম জেলি পরিমাণ মতো।
পেট্রোলিয়াম জেলি লাগিয়ে ৫-১০ মিনিট ভালো করে ম্যাসাজ করুন। প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এটা লাগিয়ে ঘুমাতে যান,দেখবেন দাগ হালকা হচ্ছে।

Tarokaloy_skin_care

৪. ড্রাই ব্রাশিং
শুনে অবাক লাগছে ,তাই না? মানে শুধুমাত্র ড্রাই ব্রাশিং দিয়ে কিভাবে সম্ভব!! কিন্তু এই পদ্ধতি গর্ভাবস্থার দাগকে হালকা করতে সাহায্য করে।কারণ ড্রাই ব্রাশিং আপনার রক্ত আর লসিকার সঞ্চালনকে বাড়িয়ে তোলে,ফলে আপনার দাগের জায়গায় পর্যাপ্ত পরিমাণে নিউট্রিয়েন্টস পৌঁছতে সাহায্য করে । তেল আর ঘর্মগ্রন্থির কার্যক্ষমতা বাড়িয়ে তা মরা কোষকে এক্সফোলিয়েট করতেও সাহায্য করে।

উপকরণঃ
নরম বডি ব্রাশ।
পদ্ধতিঃ
আপনার দাগের জায়গায় সার্কুলার মোশনে ব্রাশ করুন আস্তে করে। ৫-৬ মিনিট ধরে করে গোসল করে ভালো দেখে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন।প্রত্যেকদিন নিয়ম করে গোসল করার আগে এই ড্রাই ব্রাশিং করে যান।কয়েকদিনের মধ্যেই রেজাল্ট বুঝতে পারবেন।

৫. ডিমের সাদা অংশ
ডিমের সাদা অংশ কিন্তু গর্ভাবস্থার স্ট্রেচ মার্কস দূর করতে দারুণ কাজে দেয়।কারণ ডিমে থাকা এনজাইম ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা বাড়িয়ে দাগকে হালকা করতে থাকে।


তৈরির উপকরণঃ
১-২ ডিমের সাদা অংশ,২-৩ ফোঁটা নারকেল তেল বা বাদাম তেল,তেলটি ব্রাশে লাগানোর জন্য।
পদ্ধতিঃ
একটা বাটিতে ডিমের সাদা অংশ ফেটিয়ে ওতে নারকেল তেল বা বাদাম তেল মিশিয়ে নিন।এবার ব্রাশে করে আপনার দাগের জায়গায় ব্রাশ করুন। শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন।এভাবে সপ্তাহ খানেক করুন,দেখবেন উপকরা হচ্ছে।

Previous ArticleNext Article