Uncategorized, রেসিপি

চিলিয়ান সি ব্যাস রেসিপি

নামে চিলি থাকলেও খুব যে বেশি পরিমাণ চিলি ব্যবহার হয় তা কিন্তু নয়, চিলিয়ান সি ব্যাস চিলির সমুদ্র উপকূল থেকে আসে। চিলিয়ান সি ব্যাস এর সাথে ব্যাস সম্প্রদায় মাছেরও কোনো মিল নেই। মাছ টির নাম যতটা অসম্ভব সুন্দর ঠিক তেমনি মাছটি স্বাদে অপূর্ব, বিশেষ করে মাছটির চামড়ার দিকের অংশটিতে এত স্নেহ পদার্থ যে যাঁরা তৈলাক্ত মাছ পছন্দ করেন তাঁদের নিশ্চিত রূপে মাছটি প্রথম পছন্দ থাকবে। মাছটি মধ্যে মারকারির পরিমাণ অনেক বেশি সে জন্য পরিণত বয়স্ক মানুষের মাসে দুই একবার এবং বাচ্চারা শুধু একবার খেলেই মঙ্গল।

চিলিয়ান সি ব্যাস শুধু লবণ, গোলমরিচ দিয়ে মাখনে প্যন ফ্রাই করলে আর কিছু চাই না। তবে এবার একটু অন্যরকম রেসিপি আপনাদের সামনে তুলে আনার চেষ্ঠা করেছি। এই রান্নাটি জন্য সময় লাগবে মাত্র ১৫ মিনিট। তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক রেসিপিটি।

উপকরণঃ
মাছটি রাঁধতে যা যা লাগবে, তা হল-
১/অবশ্যই চিলিয়ান সি ব্যাস- বড় একটি স্টেক কিনে দুই বা চার টুকরো করে নিতে হবে
২/গোলমরিচ- এক চামচ।
৩/লবণ- পরিমাণ মত।
৪/মাখন- এক চামচ।
৫/অলিভ অয়েল- বড় দুই চামচ
৬/ পালং শাক- এক আঁটি (কুচি করে নিতে হবে)
৭/ বেবি টম্যাটো- চারটি
৮/রসুন- ছয় কোয়া
৯/ লেবুর জিসট- এক চামচ। ১০/লেবুর রস- এক চামচ।
১১/থাইম- এক চামচ,

প্রণালী

রান্না দ্রুত করতে দুইটি পাত্রে রান্না শুরু করুন।
প্রথমতঃ, চিলিয়ান সি ব্যাস রুম তাপমাত্রায় এনে আধা চামচ অলিভ অয়েল, লবণ, গোলমরিচ এবং থাইম দিয়ে মেখে রাখুন।

দ্বিতীয়তঃ একটি পাত্র গরম করে এক চামচ অলিভ অয়েল দিয়ে রসুন এবং ট্যমেটো গুলো ভাজা ভাজা করুন। ট্যমেটো নরম হলে লবণ গোলমরিচ দিন। লেবুর জিসট দিন। অল্প থাইম দিন। ভালো করে নাড়িয়ে মাখন দিন। মাখন গললে পালং শাক দিয়ে কম আঁচে ঢেকে দিন। মাখা মাখা হলে নামিয়ে রাখুন।

অন্যদিকে- একটি লোহার তাওয়া গরম হলে এতে অলিভ অয়েল দিন। মাছটিকে তেলে দিয়ে মিনিট দুয়েক ভাজে নিন। দুই মিনিট পরে মাছটিকে উল্টাবেন। মাছটি এবার অল্প মাখন আর লেবুর রস দিন।

তারপর,প্লেটে প্রথমে সবজি সাজিয়ে তার ওপরে মাছ রাখুন। প্যানে যে লেবু আর তেল মিশ্রিত তরল রয়ে গেছে তার এক দুই চামচ মাছটির ওপর ছড়িয়ে পরিবেশন করুন এবং উপভোগ করুন।

Previous ArticleNext Article