সাজগোজ

জবা ফুলের ঔষধি গুনাগুন ও ব্যবহার! 

জবা হচ্ছে ঔষধি গুনাগুনে সমৃদ্ধ একটি ভেষজ উদ্ভিদ। এটি ঝোপ জাতীয় একটি গাছ। এই ফুলের রঙ কয়েক ধরনের হয় সাদা, লাল, গোলাপি ইত্যাদি। দেখতে সাদামাটা ও গন্ধহীন কিন্তু এর স্বাস্থ্য উপকারিতা অনেক। এর ফুল, ফুলের পাপড়ি, গাছের পাতা ও গাছের ছাল সব ব্যবহার উপযোগী ও ঔষধি গুনাগুন সম্পন্ন। এই ফুলের বৈজ্ঞানিক নাম হলো হিবিসকাস রোজা-সিনেনসিস লিন(Hibiscus rosa-Sinensis Linn) এর কিছু ব্যবহার ও গুনাগুন আছে। আসুন জেনে নেই কিভাবে? 
 


 

ক্যান্সার প্রতিরোধক :  
 
এই ফুলে রয়েছে এমন সব অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা আপনার শরীরের ক্যান্সার সেল গুলোকে সচল হতে বাধা প্রদান করে। এমন নিয়মিত এই ফুল সেবন করলে ক্যান্সার থেকে মুক্তি পেতে পারেন। 


 
 

 
টাক পোকা রোগের প্রতিকার :  
 
মাথায় চুল স্বাভাবিক থাকা সত্বেও কিছু কিছু যায়গায় দেখা যায় অনেক টুকু অংশ নিয়ে চুল নেই ফাঙ্গাসের ফলে যাকে টাকে ধরা বলা হয়। এক্ষেত্রে দু একটা জবাফুল বেটে ২-১ ঘন্টার জন্য ওখানে লাগিয়ে রাখলে কিছু দিনের মধ্যে চুল উঠে যাবে। টানা ১-২ সপ্তাহ লাগালে ফলাফল পাবেন। 
 


 
 
ঘন ঘন প্রস্রাব থেকে মুক্তি : 
 
যারা প্রচুর পরিমাণে পানি পান করলে বা না করলেও ঘন ঘন প্রস্রাবের সমস্যা দেখা দেয় কিন্তু ডায়াবেটিস রোগী নয়, সেক্ষেত্রে জবা ফুল গাছের ছাল বেটে রস বের করে এক কাপ পরিমাণ পানির সাথে পরিমাণমত চিনিসহ মিশিয়ে টানা ১ সপ্তাহ খেলে উপকার পাবেন।  
 
 
 

চুল পড়া বন্ধ করে : 
 
ঔষধি গুণসম্পন্ন এই জবা ফুলে রয়েছে নানান পুষ্টি উপাদান। চুলে পুষ্টি প্রদান করে চুল পড়া বন্ধ করে এবং চুলের স্বাস্থ্য রক্ষা করে। চুলকে করে উজ্জ্বল আর ঝলমলে। নারিকেল তেলের সাথে জবা ফুল নিয়ে হালকা ফুটিয়ে চুলে ব্যবহার করলে চুল কালো হয় এবং চুল পড়া বন্ধ করে। এমনকি এই ফুলের ব্যবহারে রোদের আলো ও তাপ থেকে চুলকে রক্ষা করে ও চুলের প্রাকৃতিক রঙ নষ্ট হওয়া থেকে রক্ষা করে ।  
 
 
 

 
স্কাল্পের চুলকানি খুশকি থেকে মুক্তি দেয় :
 
 
জবা ফুলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন এ এবং সি ও অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল প্রপার্টিজ। যা ব্যবহারে স্কাল্পের খুশকি ও ব্যাকটেরিয়া আক্রমনে ফলে চুলকানি থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে। এছাড়া স্কাল্পের যেকোনো সমস্যা রোধে জবা ফুলের বিকল্প নেই। অল্প পানিতে কয়েকটি জবা ফুল সিদ্ধ করতে হবে। তারপর সেই পানি ঠান্ডা হলে চুলে লাগাতে হবে। চুলের গোড়া শীতল করে চুলের ব্যাকটেরিয়া আক্রমন দূর করে। 
 
 
 
বয়সের ছাপ কমানো : 
 
দিনে দিনে বয়স অতি দ্রুত বাড়তে থাকে তাই বয়সতো আটকানো সম্ভব নয়। কিন্তু বয়সের ছাপ কমিয়ে আনা সম্ভব। এতে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্টস বয়সের ছাপ কমানো ও যৌবন ধরে রাখতে সাহায্য করে। নিয়মিত এই ফুলের রস সেবন করলে বয়সের ছাপ কমিয়ে দিতে সাহায্য করবে। 


 
তারকালয়/২১/১২/১৮/রুপা 
 
 
 
 

Previous ArticleNext Article