সাজগোজ

মেকআপ কিটস এর সঠিক যত্ন

প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে মেকআপ পরিষ্কার করে তো ঘুমান, কিন্তু যে সব জিনিস দিয়ে মেকআপ ব্যবহার করেন সেগুলো রেগুলার পরিষ্কার করেন তো? জি হ্যাঁ আমি মেকআপ কিটস এর কথায় বলছি। মেকআপের শুরু থেকে শেষ অবধি কত কিছুই না ব্যবহার করে থাকেন যেমন ধরুন ফাউন্ডেশন, কন্ট্যুরিং, হাইলাইট, আইশ্যাডো আরও কত কি! এসব ব্যবহার করতে নানা রকম ব্রাশ, বিউটি ব্লেন্ডার, আইল্যাশ কার্লার এমনকি চিড়ুনি ও কিন্তু মেকআপ টুলসে মধ্যেই পড়ে। তাই কিটস গুলো পরিষ্কার করে না থাকলে এখুনি করুন।

স্কিন কেয়ারের জন্য হলেও মেকআপ কিটস এর যত্ন নেওয়া দরকার। আর দিন শেষে মেকআপ রিমুভ করাটাও ত্বকের জন্য অত্যন্ত জরুরী। কারণ মুখ পরিষ্কার না থাকলে ব্যাকটেরিয়া ও জীবাণু জন্মে ত্বকের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। ব্রন, ব্ল্যাকহেডস ও নানা রকম ইনফেকশন হতে পারে। কিন্তু মেকআপ রিমুভের পাশাপাশি মেকআপ কিটস এর পরিষ্কার রাখাটাও ততটা জরুরী কেননা মেকআপ কিটস না পরিষ্কার করে ব্যবহারের মাধ্যমেও কিন্তু ত্বকের বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়াল সমস্যা হতে পারে।

মেকআপ কিটস পরিষ্কারের সময় : বিভিন্ন ডার্মাটোলজিস্টের মতে, যারা রেগুলার মেকআপ করেন তাদের সপ্তাহে অন্তত একদিন মেকআপ কিট পরিষ্কার করা উচিত। স্পেশালি মেকআপ ব্রাশ, বিউটি ব্লেন্ডার। কারণ এইগুলো সরাসরি মুখে ব্যাবহার করা হয়। এছাড়াও অন্যান্য কিট গুলো দুই সপ্তাহে একবার পরিষ্কার করতে পারেন। তাছাড়া মেকআপ কিট নিয়মিত পরিষ্কার করলে এগুলো দীর্ঘস্থায়ী হয় ও মেকআপ ভালো ব্লেন্ড হয়। অনেকদিন ক্লিন না করলে এর উপর তেল ও ময়লা জমে যায় যার কারণে মেকআপের সময় ব্লেন্ড হতে ঝামেলা হয়।

জেনে নিন মেকআপ কিটস পরিষ্কারের উপায়-

মেকআপ ব্রাশ : ফাউন্ডেশন ব্রাশ , কন্ট্যুরিং ব্রাশ , হাইলাইট ব্রাশ, আইশ্যাডো ব্রাশ বা জন্য চোখের জন্য সেসব আলাদা আলাদা ব্রাশ আছে সেগুলো সপ্তাহে অন্তত একদিন পরিষ্কার করবেন। যারা অকেশনালি মেকআপ করেন তার দুই সপ্তাহে একবার পরিষ্কার করতে পারেন। হাতের তালুতে অল্প বেবি শ্যাম্পু বা হালকা ক্লিনজার নিন। এবার একটি ব্রাশ ভিজিয়ে নিয়ে তা হাতের তালুতে নেয়া শ্যাম্পুর উপর ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে হালকাভাবে ঘষতে থাকুন যেভাবে মেকআপ ব্লেন্ড করেন ঠিক সেভাবে। দেখবেন ব্রাশে লেগে থাকা ময়লা ও মেকআপগুলো উঠে আসছে। সব ময়লা পরিষ্কার হয়ে গেলে এবার পানি ছেড়ে তার নিচে হাত রেখে একিভাবে ঘষতে থাকুন। দেখবেন পরিষ্কার হয়ে গেছে। ধোয়া হয়ে গেলে ব্রাশ গুলো কখনও খাড়াভাবে রেখে শুকাবেন না। এতে পানি নিচের দিকে যেয়ে জমে যায় ও ব্রাশ নষ্ট হওয়ার সুযোগ থাকে। তাই ব্রাশ গুলো সামনের দিক নিচের দিক করে ঝুলিয়ে রাখুন অথবা ফ্ল্যাট ভাবে রেখে ব্রাশের সামনের দিকটি সামান্য নিচু করে রেখে শুকাবেন।


বিউটি ব্লেন্ডার : বিউটি ব্লেন্ডার বা মেকআপ স্পঞ্জটি
প্রতিবার ব্যবহারের পরপরই পরিষ্কার করে নিবেন। একটি সালফেট ফ্রি সাবান নিয়ে তা বিউটি ব্লেন্ডারে বা স্পঞ্জে ভালোভাবে লাগিয়ে নিন। এবার বিউটি ব্লেন্ডার বা স্পঞ্জটি ভালোভাবে চেপে চেপে ধুয়ে নিন। সব সাবান বের হয়ে গেলে চেপে অতিরিক্ত পানি বের করে একটি পরিষ্কার টাওয়েল দিয়ে আরেকটু চেপে মুছে নিন।

আইল্যাশ কার্লার : একটি কটন প্যাডে সামান্য মেকআপ রিমুভার লাগিয়ে নিয়ে তা দিয়ে আইল্যাশ কার্লারের রাবার প্যাড ভালভাবে মুছে নিন। এতে রাবার প্যাডে জমে থাকা মাশকারা যা আবার আপনার আইল্যাশে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে তা পরিষ্কার হয়ে যাবে। এবার হালকা গরম পানি দিয়ে কার্লারটি ধুয়ে নিন। আপনার আইল্যাশ কার্লার প্রতি সপ্তাহে অন্তত একবার পরিষ্কার করুন। আইল্যাশ কার্লার নিয়মিত পরিষ্কার না করলে চোখের ইনফেকশন হওয়া থেকে যে কোনো সমস্যা হতে পারে।

হেয়ার ব্রাশ : সাধারণত হেয়ার ব্রাশ বা চিড়ুনি সামান্য ময়লা হলেই ধুয়ে ফেলা উচিত অর্থাৎ হেয়ার ব্রাশ নিয়মিত ধোয়া উচিত। হেয়ার ব্রাশ বা চিরুনি আপনি সপ্তাহে ১বার পরিষ্কার করতে পারেন। একটি বোলে মাইল্ড কোন শ্যাম্পু নিয়ে তাতে ব্রাশটি ৩-৫ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন। এবার একটি পুরোনো টুথব্রাশ দিয়ে ঘষে ময়লা পরিষ্কার করে নিন। ব্রাশ যদি প্লাস্টিকের না হয়ে ফেব্রিকের হয় তাহলে এতক্ষণ ভিজিয়ে রাখবেন না। সেক্ষেত্রে সামনের ব্রাশযুক্ত অংশটি শুধু ভিজিয়ে নিবেন। এরপর মেকআপ ব্রাশের মতো করে পরিষ্কার করে ফ্ল্যাটভাবে রেখে শুকাবেন।


কতদিন পর্যন্ত মেকআপ কিটস ব্যবহার করবেন?

আপনার বিউটি ব্লেন্ডার বা মেকআপ স্পঞ্জটি তিন থেকে চার মাসের বেশি ব্যবহার করবেন না। আর মেকআপ ব্রাশ ব্যবহারের ক্ষেত্রে যদি দেখেন এটির স্মুথ ভাব আর পাচ্ছেন না বা হালকা খোঁচা লাগছে সেক্ষেত্রে বুঝতে হবে ব্রাশটি আর ব্যবহারযোগ্য না।

আপনি আপনার ত্বককে ভালোবাসলে আজই ত্বকের পাশাপাশি মেকআপ কিটস এর যত্ন নিন।

তারকালয়/২৭ আগস্ট,২০১৮/রূপা

Previous ArticleNext Article