Uncategorized, সাজগোজ

চুল অতিরিক্ত ঘামলে কি করা উচিত?

গ্রীষ্ম হোক বা বর্ষাকাল! যে কালই হোক না কেন, আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা বলতে গেলে নানান ধরনের সমস্যায় ভোগেন মূলত গ্রীষ্ম কালে। এমনকি কিছু মানুষ তো সারা বছরই হাত-পা, শরীরের পাশাপাশি চুলের গোঁড়া ঘামার মত বিব্রতকর একটি সমস্যায় ভুগে থাকেন। চুল যেমন সৌন্দর্যের প্রতীক, তেমনি সকলের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে তুলতে চুল বিশেষ ভূমিকা পালন করে। তাই, চুলের যত্নটাও কিন্তু হওয়া উচিৎ কার্যকর উপায়ে। বেশির ভাগই মানুষের সর্বাধিক একটি লক্ষণীয় সমস্যা হচ্ছে চুল পরা। কখনও কি ভেবে দেখেছেন মাথা বা চুলের গোঁড়ায় অতিরিক্ত ঘাম এর কারণে হচ্ছে না তো এমনটি?

Tarokaloy_hair_care

আমরা অনেকেই হয়তো জানি না তবে, চুলের গোঁড়ায় ঘাম হলে সেই ঘাম থেকে এক ধরণের টক্সিন যুক্ত উপাদান বের হয়ে থাকে। এই উপাদানটি আমাদের চুলের জন্যে মারাত্মক ক্ষতিকর। এর ফলে চুল পরার মত সমস্যা থেকে শুরু করে চুল পেকে যাওয়ার আশঙ্কাও থাকে। এমন হলে চুলের যত্ন কিভাবে নিবেন? চলুন আজকে তাই জেনে নেয়া যাক।

Tarokaloy_hair_care

ভেজা চুল না বাধা:

গোসল করার পর কখনই চুল না শুকিয়ে তা সাথে সাথে বাঁধবেন না বা আঁচড়াবেন না। চুল ভেজা থাকা অবস্থায় চুলের গোঁড়া অত্যন্ত নরম থাকে, এ অবস্থায় চুলে যে কোন হেয়ার স্টাইল করা হলে বা চুল বেঁধে রাখলে চুল পরার সম্ভাবনা অনেক গুণ বেড়ে যায়। পাশাপাশি গরমে চুল ভেজা অবস্থায় শক্ত করে বাঁধার কারণে চুলের গোঁড়ায় সহজেই ঘাম জমে যায় যা চুলের ক্ষতি করতে পারে।

Tarokaloy_hair_care

উইক এ দুবার প্যাক ব্যবহার করা:

চুলের গোঁড়া মজবুত করতে সাহায্য করবে এমন হেয়ার প্যাক ব্যবহার করতে চেষ্টা করুন। বিশেষ করে যে সকল হেয়ার প্যাকে অ্যালোভেরা, মেথি, লেবু, নারিকেল তেল, আমলকী এসকল উপাদান রয়েছে সেগুলো চুলে ব্যবহার করুন। অ্যালোভেরা চুলকে ভেতর থেকে মজবুত জীবন্ত রাখে সহায়তা করে। মেথিতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ভিটামিন সি, লৌহ এবং লিকিথিন আছে যা চুলের গোঁড়াতে পুষ্টি যোগায় এবং চুলকে মজবুত করে তোলে।

Tarokaloy_hair_care

প্রতিদিন গোসল করা:

নিয়মিত গোসল না করার অনেক ধরনের ক্ষতিকর দিক রয়েছে যা নিয়ে আমরা তেমন একটা ভাবি না। নানা রকম জীবাণু ইনফেকশন এড়াতে নিয়মিত গোসল করাটা খুবই আবশ্যক । ঘামের দুর্গন্ধ এবং চুলে থাকা ব্যাকটেরিয়া থেকে রক্ষা পেতে নিয়মিত গোসল করা জরুরি।

Tarokaloy_hair_care

চুলে শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ব্যবহার:

চেষ্টা করুণ সপ্তাহে অত্যন্ত একদিন পর পর শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ব্যবহার করতে। আমাদের অনেককেই নিয়মিত নানা কাজে বাইরে বের হতে হয়, বাইরে থেকে আমাদের চুলে এবং চুলের গোঁড়ায় খুব সহজেই ধুলাবালি এবং ময়লা জমে যায়। যার ফলে চুলে নানা রকম সমস্যা দেখা দিতে পারে এবং চুলের গোঁড়ায় ঘাম জমে যাওয়ার পাশাপাশি চুল হয়ে যায় রুক্ষ এবং মলিন। তাই অবশ্যই চেষ্টা করবেন নিয়ম অনুযায়ী হারবাল বা মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুতে যেন চুলের গোঁড়া পরিষ্কার থাকে। কন্ডিশনার চুলকে ময়েশ্চারাইজড রাখে। তবে চুলের গোঁড়াতে কিন্তু এটি দেয়া যাবে না! শুধু হেয়ার লেন্থে অ্যাপ্লাই করতে হবে

 

চুল হচ্ছে সুন্দর্যের আভিজাত্য ,তাই চুলার যত্ন নিয়া উচিত। চুলকে সুন্দর ও সুস্থ রাখার জন্য উপরিক্তি আলোচনা গুলো যথাযথ ভাবে অনুসরণ করলে অনেকটা সমাধান করা সম্ভব। আশা করি আপনাদের এই উপায় গুলো কাজে দিবে।

 

Tarokaloy ১৯/০৯/২০২০ Riya

Previous ArticleNext Article