সাজগোজ

চুল বৃদ্ধিতে চুলের ৪টি জাদুকরী তেল !

দাদি-নানীদের কোন তুলনা হয় না। মাথা থেকে পা, ঘরের বাইরের রোগ নিরাময়ে সব কিছুতেই তাদের কাছে ঝটপট উপায় থাকেই। তাদের কাছ থেকে যা আসে সবকিছু অনেক বেশি ভালো লাগে, হোক সেটা ভালবাসা, খাবার, উপহার, ঘরোয়া টিপস বা নিরাময় এবং মানা করা পরেও জোর করে তেল মাসাজ করে দেয়া। সবকিছু এতটা আদরের সাথে করে যে বার বার তাদের কাছে ছুটে যেতে ইচ্ছে করে। 
 
 
দাদী-নানীদের তেল মাসাজ টা নিশ্চয়ই অনেকেই মিস করেন। এটা মোটামুটি সবারই ছোটবেলার স্মৃতি। আর এখন এতো কর্মব্যস্ততার জীবনে সবসময় হয়ে উঠে না তাদেরকে সাথে সময় কাটানোর জন্য। কিন্তু আমরা সবসময় তাদের দেয়া অভিজ্ঞতা ও ঘরোয়া টিপস থেকে সুবিধা নিয়ে থাকি। যেমন ধরুন তাদের দেয়া বিভিন্ন চুলের যত্নের টিপস। আমরা একটি লিস্ট তৈরি করেছি তাদের দেয়া সেই গোপন চুলের তেলের রেসিপিসমূহ আসুন জেনে নেই। 

 

১.কারি পাতা+ নারিকেল তেল 

কারি পাতা চুলের জন্য খুব উপকারী উপাদান। এটা অপরিহার্য পুষ্টি উপাদান, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, অ্যামিনো এসিডে সমৃদ্ধ যা চুল পাতলা হওয়া, চুল পড়া থেকে বাঁচায় ও চুলের গোড়া মজবুত করে। কারি পাতায় আরও রয়েছে বিটা ক্যারেটিন ও প্রোটিনস যা চুল বৃদ্ধিতে উদ্দীপিত করে।

 

যেভাবে তৈরি করবেন

এক মুঠো কারি পাতা নিয়ে দুই দিন একটানা সূর্যের আলোয় ভালো ভাবে শুকিয়ে নিন। শুকিয়ে গেলে তা ১০০মিলি নারিকেল তেল-এ কিছুক্ষন ফুটিয়ে নিন। এরপর ঠান্ডা করে ছেকে মিক্সারটি স্কাল্পে ও চুলে মাসাজ করুন।
 


২. কালো জিরা+ নারিকেল তেল/ অলিভ অয়েল

আরেকটি প্রাকৃতিক উপাদান যা দাদী নানীদের অনেক প্রিয় সেটি হলো কালো জিরা। কালো জিরাকে সকল রোগের ঔষধি ও বলা হয়। এতে ভিটামিন এ, বি, সি, ম্যাগনেসিয়াম, জিংক, আয়রন, পটাশিয়াম আরও প্রয়োজনীয় ফ্যাটি এসিডে সমৃদ্ধ, যা সব একত্রে আপনাকে দিবে প্রবলেম ফ্রি স্বাস্থ্যকর চুল। কালো জিরা তেলের সাথে ব্যবহার করলে শুধু চুল বাড়ে না, এমনকি চুলের আগা ফাটা দূর করে চুলকে কন্ডিশনিং করে।  

যেভাবে তৈরি করবেন

১ টেবিল চামচ কালো জিরা গুড়ো করে নিন। এবার একটি বোতলে ১০০ মিলি বা আপনার ইচ্ছে মত নারিকেল তেল বা অলিভ অয়েল নিয়ে তাতে কালো জিরা গুড়ো দিয়ে ২-৩ দিন একটানা রোদে তাপ দিবেন। এরপর এটি ব্যবহার করার আগে একটু গরম করে তারপর মাথার স্কাল্পে ও চুলে মাসাজ করবেন।
 


৩. নিম+ অলিভ অয়েল

খুশকি আমাদের একটি কমন সমস্যা যদিও এই সমস্যার সমাধান ও আমাদের দাদী নানীদের কাছে আছে। নিম-এ আছে অতি মাত্রায় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, ফ্যাটি এসিড এবং এর অ্যান্টি-ফাংগাল ও অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেশন প্রপার্টিজ চুলকে করে স্বাস্থ্যকর ও খুশকি মুক্ত।
 

যেভাবে তৈরি করবেন 

কতগুলো নিম পাতানিয়ে সেগুলো রোদে দুই দিন একটানা শুকিয়ে নিন। এরপর শুকনো নিম পাতাগুলো অলিভ অয়েল-এ কিছুক্ষন ফুটিয়ে নিন। এরপর এক সপ্তাহ এইভাবেই নিমের পাতা সহ রেখে দিন, দেখবেন তেলটি সবুজ রঙের হয়ে যাবে তখনি এই তেলটি ব্যবহার করতে পারবেন। এরপর সেই তেলটি ছেঁকে পাতা ফেলে একটি কাচের বোতলে সংরক্ষণ করুন। ব্যবহারের আগে অবশ্যই গরম করে তারপর মাথার স্কাল্পে ও চুলে মাসাজ করবেন।


৪. আমলকি+অলিভ অয়েল

আমলকি চুলের পুষ্টির জন্য আরেকটি জনপ্রিয় ও কার্যকরী উপাদান। এটি ভিটামিন সি সমৃদ্ধ একটি উপাদান। এটি আপনার চুলকে কালো ও ঝলমলে করবে।

 

যেভাবে তৈরি করবেন

কয়েকটি শুকনো আমলকি নিয়ে অলিভ অয়েল-এ নিয়ে কিছুক্ষণ ফুটিয়ে নিন। এরপর আমলকি সহ অলিভ অয়েল তেলটি এক সপ্তাহ রেখে দিন। এই তেলটি কাঁচের গ্লাসে সংরক্ষণ করবেন। ভালো ফলাফল পেতে সপ্তাহে দুই বার ব্যবহার করবেন। 

 

তারকালয়/২৯/০৯/১৮/রুপা 

 

Previous ArticleNext Article