সাজগোজ

বেস্ট ৫ ফেস পাউডার

ত্বকের সাথে মিলিয়ে কোনও প্রোডাক্ট কেনা খুবই ঝামেলার কাজ। আগে থেকে জানা না থাকলে, একটা প্রোডাক্ট কিনতেই ঘণ্টার পর ঘণ্টা লেগে যেতে পারে। ফেস পাউডার এমন-ই একটি প্রোডাক্ট আপনি যদি আগে থেকে না জানেন কোন ফেস পাউডার আপনার ত্বকের জন্য পারফেক্ট, তাহলে আপনি ফেস পাউডার কেনার সময় সমস্যার সম্মুখীন হবেন। এখানে ৫ টি ফেস পাউডারের নাম, সুবিধা-অসুবিধা সহ দেওয়া হলও। মিলিয়ে নিন, আপনার কোনটি দরকার:

১. লওরা মার্সিয়ার ট্রান্সলুসেন্ট লুজ সেটিং পাউডার

সুবিধা:

  • ত্বকে চমৎকার ম্যাট ফিনিশ দিবে
  • সব ধরনের ত্বকের জন্য ব্যবহার উপযোগী
  • প্রায় ৬ ঘণ্টার মতো স্থায়ী হবে

অসুবিধা:

  • পাফটি তুলনামূলক বড়, যার ফলে কন্টেইনারে রাখা যায় না।
  • এটি লুজ পাউডার, তাই দুরে ভ্রমণের জন্য কার্যকরী না।

রেটিং: ৪/৫

২. ম্যাক মিনারেলাইজ স্কিন ফিনিশ ন্যাচারাল

সুবিধা:

  • ফটো-শুট এবং ভিডিও করার জন্য পারফেক্ট
  • ১৫ টি শেড এভেইলএবল
  • এটি ন্যাচাল লুক পাওয়ার জন্য আদর্শ
  • প্রতিদিন ব্যবহার করা সম্ভব
  • ব্রণ হওয়ার সম্ভাবনা নেই

অসুবিধা:

  • অয়লি স্কিনের জন্য ব্যবহার উপযোগী নয়

রেটিং: ৪/৫

৩. রিমেল স্টে ম্যাট প্রেসড পাউডার

সুবিধা:

  • ৫ ঘণ্টার উপরে স্থায়ী হয়
  • অয়লি স্কিনের জন্য পারফেক্ট
  • সব ধরনের স্কিনে ব্যবহার করা যায়

অসুবিধা:

  • লুজ পাউডার হওয়ার ফলে এটি ভ্রমণের জন্য ব্যবহার করা যায় না
  • দুর্বল প্যাকেজিং

রেটিং: ৪.৫/৫

৪. মেকআপ ফর এভার এইচডি মাইক্রো ফিনিশ পাউডার

সুবিধা:

  • ত্বকে ব্যবহার করার পর অদৃশ্য হয়ে যায়
  • প্রিমার এর চেয়ে ভালো মেক আপ সেট করে
  • লোমকূপ সংকুচিত করে
  • ব্রোঞ্জার, ব্লাশ আর কন্ট্যুরের রং এর সাথে মিশে যায় না

অসুবিধা:

  • ডার্ক স্কিনে একটু লাইট দেখায়

রেটিং:  ৪.৫/ ৫

৫. ক্লিনিক ব্লেন্ডেড ফেস পাউডার

সুবিধা:

  • এলার্জি টেস্টেড
  • লোম কূপ মিনিমাইজ করে
  • ব্রন হওয়ার ঝুঁকি নেই

অসুবিধা:

  • খুব বেশি অয়লি স্কিন হলে ব্যবহার করা যাবে না
  • কোনও ব্লেমিশ ঢাকতে ব্যবহার করা যায় না
  • ইরিটেশন সৃষ্টি করতে পারে

রেটিং: ৪/৫

এখন সব সুবিধা অসুবিধা যাচাই বাছাই করে আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন, আপনার কোন ফেস পাউডারটি দরকার।

Previous ArticleNext Article