Uncategorized, রেসিপি

স্বাস্থ্যকর অরেঞ্জ স্মুদি তৈরির রেসিপি

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য ভিটামিন সি বহু বছর ধরেই বিশেষ ভূমিকা পালন করে আসছে,আর ডক্টর বা বিশেষজ্ঞগণ ,ভিটামিন সি জাতীয় খাবার খাওয়ার জন্য তাগিদ দিয়ে আসছে। সকলেরই কম বেশি জানা আছে যে, কমলা বা মালটাতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি আছে। এছাড়া ভিটামিন এ, ফাইবার, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন বি৬ সহ আরও অনেক পুষ্টিগুণ আছে এতে! কিন্তু অনেক সময় ছোটদের সাথে বড় রাও চায় না সব সময় একই ভাবে খেতে, একটু ভিন্নতর ভাবে পরিবেশন করলে খাওয়ার আগ্রহটা বেরে যায়,এবং সব থেকে বেশি আনন্দিত হয় বাচ্চারা।

tarokaloy_orange_smoothie_recipie

নতুন নতুন করে খাবার করে তাদের সামনে দিলে,খুশিতে আত্মহারা!! তাহলে আজকে আমরা জেনে নিবো কিভাবে বাসায় অল্প কিছু উপাদান দিয়ে খুব সহজেই টেস্টি আর হেলদি অরেঞ্জ স্মুদি তৈরি করে নেওয়া যায়। পুষ্টিকর সব উপকরণ দিয়ে বানানো এই স্মুদিতে বাড়তি কোনো চিনি যোগ করা হয় না। তাই সব বয়সের সবার জন্যই খাওয়ার জন্য উপযোগী একটি পানীয় । দেড়ি না করে অরেঞ্জ স্মুদি তৈরির পুরো প্রণালীটি এক নজরে জেনে নিন অরেঞ্জ স্মুদি তৈরির উপায় ও উপকরণ ।

tarokaloy_orange_smoothie_recipie

যে যে উপকরণ সমূহ ব্যবহার করা হয়েছে :-

মালটা বা কমলা- ২টি

টকদই– ৪ টেবিল চামচ

কলা- ১টি

মধু- ২ চা চামচ

গুঁড়ো দুধ- ২ চা চামচ

tarokaloy_orange_smoothie_recipie

প্রস্তুত প্রণালী বিধি

• কমলা বা মালটা, আপনার ইচ্ছে বা পছন্দ মত সহজলভ্য যেটি, সেটা দিয়ে এই স্মুদি বানিয়ে নেওয়া যাবে! রস বা পিউরি ব্যবহার করতে পারেন। কিংবা ছোট ছোট করে কেটেও নিতে পারেন।

• ব্লেন্ডারের জগে কলা, টকদই ও গুঁড়ো দুধ দিয়ে এক মিনিটের জন্য ব্লেন্ড করে নিতে হবে। এর ফলে মিক্সচার টি বেশ স্মুথ ও ক্রিমি হবে মিশ্রণটি!

• এবার অরেঞ্জ ও মধু দিয়ে পুনরায় ৩০ সেকেন্ডের জন্য ব্লেন্ড করুন। যদি প্রয়োজন হয় তাহলে হাফ কাপ ঠাণ্ডা পানিও যোগ করতে পারেন।

• তারপর ছাঁকনি দিয়ে ছেঁকে নিয়ে গ্লাসে ঢেলে পরিবেশন করুন।

এইতো ব্যস , মজাদার ড্রিঙ্কসটি অল্প সময়ে ও ঝামেলাবিহীনভাবে তৈরি হয়ে গেলো! অরেঞ্জ স্মুদিতে কমলার পাশাপাশি বেশ কিছু উপাদান ব্যবহার করা হয়েছে। টকদই হজমে সহায়তা করে এবং ওজন নিয়ন্ত্রণ করে। মধু সর্দি-কাশি কমাতে ও হার্ট ভালো রাখতে কার্যকরী ভুমিকা রাখে। আর কলারও অনেক স্বাস্থ্যগুণ আছে। তাই এই পানীয়টি প্রতিদিনের খাদ্যতালিকাতে অনায়েশে রাখা যেতেই পারে! মনে রাখবেন, পরিমিত পরিমাণে পুষ্টিকর খাবার খেলে আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে এবং রোগ বালাই থেকে অনেকটাই দূরে থাকতে পারবেন।

Previous ArticleNext Article