সাজগোজ

ত্বকের সুরক্ষায় যা করণীয়

ত্বক ভালো রাখতে নিয়মিত এর যত্ন নিতে হয়। প্রথমত ত্বকের ধরন বুঝে যত্ন নিতে হবে। ঋতু পরিবর্তনের কারণে ত্বকে নানা রকম সমস্যা দেখা দেয়। আর এই সমস্যা দূর করতে আবহাওয়া পরিবর্তনের সঙ্গে ত্বক পরিচর্যার উপকরণেও পরিবর্তন আনা জরুরি। এছাড়াও ত্বকের ধরন অনুযায়ী নানান রকম মাস্ক ঘরেই তৈরি করা যায় যা সাধারণত ত্বকের সুরক্ষায় কার্যকরী। জেনে নিন কিভাবে ত্বকের যত্ন নিতে হয়,

Tarokaloy_skin_care

মুখ পরিষ্কার করা: সারাদিনের ধুলোবালির ময়লা ত্বকের লোমকূপের জমা হয়ে থাকে এর ফলে ব্রণ বা একনে হয়ে থাকে তাই মুখ পরিষ্কার করা আবশ্যক। তাই ত্বকের ধরন বুঝে ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ পরিষ্কার করতে হবে দিনে দুইবার।

Tarokaloy_skin_care

তৈলাক্ত ত্বক: তৈলাক্ত ত্বকে দাগছোপ, ব্রণ, কালো দাগ, রোদে পোড়াভাব, ব্ল্যাক হেডস, আবদ্ধ লোমকূপ ইত্যাদির সমস্যা দেখা দেয়। এই ধরনের ত্বকে অধিকারীরা হালকা প্রসাধনী যেমন- জেল ভিত্তিক ময়েশ্চারাইজার ও পরিষ্কারক ব্যবহার করতে হবে। যেমন-স্যালিসাইলিক অ্যাসিড, টি ট্রি তেল ইত্যাদি। ত্বক খুব বেশি তৈলাক্ত হলে আপেল কুচি করে তার সঙ্গে এক চা-চামচ মধু মিশিয়ে মাস্ক তৈরি করে ত্বকে ব্যবহার করুন। মধু ব্যাকটেরিয়া-নাশক উপাদান সমৃদ্ধ যা ত্বকের নানাবিধ সমস্যা কমায় এবং আপেল ত্বককে মসৃণ ও কোমল হতে সহায়তা করে।

Tarokaloy_oily_skin_care

শুষ্ক ত্বক: শুষ্ক ত্বকে খসখসে ও ফাটাভাব, বর্ণের অসামঞ্জস্যতা, অকালে বয়সের ছাপ, চামড়া ওঠা ও নির্জীবভাব দেখা দেয়। তাই ত্বক শুষ্ক হয়ে যাওয়া থেকে বিরত থাকতে সঙ্গে সবসময় সানব্লক ও ময়েশ্চারাইজার রাখতে পারেন। হাত মুখ ধোয়া ও গোসলের ক্ষেত্রে গরম পানি এড়িয়ে চলতে হবে। শুষ্ক ত্বকের ময়লা ও জীবাণু দূর করতে কাঁচা দুধ খুব ভালো কাজ করে। কাঁচা দুধ শুষ্ক ত্বক থেকে মৃত কোষ দূর করে। পাশাপাশি আর্দ্রতা বজায় রাখতে সহায়তা করে।

Tarokaloy_skin_care

ব্রণ প্রবণ ত্বক: মিশ্র ত্বকে তৈলাক্ত ও শুষ্ক দুই ধরনের ত্বকের সমস্যাই একই সঙ্গে দেখা দিতে পারে। তাই ত্বকের তৈলাক্ত ও শুষ্ক অংশকে সঠিকভাবে চিহ্নিত করে আলাদা রকমের ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে। ত্বক পরিষ্কার করতে স্যালিসাইলিক অ্যাসিড সমৃদ্ধ এক্সফলিয়েটর ও মৃদু পরিষ্কারক ব্যবহার করুন যা মূলত মিশ্র ত্বকের জন্য তৈরি করা হয়েছে।

Tarokaloy_skin_care

মূলতানি মাটির সঙ্গে খাটি গোলাপ জল, নিম পাতা ও এক চিমটি কর্পুর মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে তৈলাক্ত ত্বকে ব্যবহার করুন। শুকিয়ে গেলে সাধারণ পানি দিয়ে তা ধুয়ে ফেলুন। এই মাস্ক ত্বকের তৈলাক্তভাব, ব্রণের সমস্যা কমায় এবং ত্বকের প্রাকৃতিক পিএইচ’য়ের ভারসাম্য বজায় রাখে।

Previous ArticleNext Article