রেসিপি

গাজরের হালুয়ার সহজ রেসিপি

গাজর একটি শীতকালীন সবজি হলেও সব মৌসুমে এখন এটি পাওয়া যায়। গাজর সাধারণত বিভিন্ন রান্নাকে কালারফুল করতে আমরা বেশি ব্যবহার করে থাকি। গাজরের ফাইবার, ভিটামিন এ-এর মতো নানা পুষ্টিগুণ থাকে। তাছাড়া এই সবজি দিয়ে নানারকম মুখরোচক খাবার বানানো যায় যেমন: গাজরের হালুয়া, গাজরের লাড্ডু, ছানা গাজরের সন্দেশ, গাজরের পুডিং, গাজরের কেক, কেরেট ডিলিট ইত্যাদি।

Tarokaloy_carrots

এদের মধ্যে সবচেয়ে সহজ ও ঝটপট তৈরি করা যায় গাজরের হালুয়া। সময় বাঁচাতে ও ঝামেলা কমাতে এমনকি দারুণ স্বাদ ও পুষ্টিগুণ থেকেও এই রেসিপিটি কার্যকরী। মিষ্টিপ্রিয় পেটুকদের জন্য পছন্দনীয় রেসিপির মধ্যে অন্যতম এটি। শুনলেই যেন জিভে জল চলে আসে। তাই আজকের রেসিপিতে থাকছে গাজরের হালুয়া।

Tarokaloy_gajorer halwa

গাজরের হালুয়া রেসিপিটির জন্য যা যা লাগবে, উপকরণ: গাজর- এক কেজি (কুঁচি বা গ্রেট করা), চিনি- ১.৫ কাপ দুধ- ১.৫ লিটার গুড়ো দুধ- ১/৪ কাপ এলাচ- ৩ টি দারচিনি- ২ টি কাজুবাদাম- ৮-১০টি পেস্তা বাদাম – ৫-৮ টি ঘি- ২-৩ টেবিল চামচ।

Tarokaloy_gajorer halwa_Ingredients

পদ্ধতি : গাজর ভালো করে ধুয়ে কুড়ে বা গ্রেট করে নিতে হবে । পাত্রে ৩ -৪ চামচ ঘি দিয়ে গ্রেট করা গাজরগুলো দিতে হবে এবং ভালো ভাবে নাড়তে হবে। ২-৩ মিনিট পর গাজরগুলোতে দুধ দিয়ে কিছুটা জ্বাল করে নিতে হবে। অল্প আঁচে নাড়তে হবে যতক্ষণ না গাজর নরম হয়। এবার চিনি, এলাচ, দারচিনি দিয়ে আস্তে আস্তে নাড়তে হবে। দুধ শুকিয়ে আসা পর্যন্ত মাঝে মাঝে নাড়তে থাকুন। ১৫ মিনিট পর দুধ কমে আসলে তাতে গুড়ো দুধ দিয়ে ভালোভাবে নাড়তে হবে।

Tarokaloy_gajorer halwa

কিছুক্ষন পর দেখতে হবে দুধ শুকিয়ে গেছে কিনা। দুধ পুরো শুকিয়ে যাওয়ার পর হালুয়াটা যখন পাত্রে আর লাগবেনা অর্থাৎ নাড়তে গেলে পাত্র থেকে উঠে উঠে আসবে তখন বুঝতে হবে গাজরের হালুয়া তৈরি। হালুয়া নামিয়ে নিয়ে কাজু বাদাম, পেস্তা বাদাম কুচি দিয়ে গরম গরম অথবা ঠান্ডা পরিবেশন করুন। তবে গরমের থেকে ঠান্ডা করে খেতেই বেশি ভালো লাগে। তাই ঘরের স্বাভাবিক তাপমাত্রায় রেখে ঠান্ডা করে বা ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা করুন।

Tarokaloy_gajorer halwa

অনেকে কিসমিস , মাওয়া বা খোয়া দিয়েও এটি পরিবেশন করে থাকে। আপনি আপনার নিজ পছন্দ অনুযায়ী পরিবেশন করতে পারেন। খুব সহজেই হয়ে গেলো গাজরের হালুয়া। হালুয়ার সাথে রুটির সমীকরণ থাকলে তো কথাই নেই। আর দেরি না করে আপনিও বানিয়ে নিন এই মিষ্টি মুখোর রেসিপি। কোনও অতিথি আসলে বা এমনকী কোনও অতিথির বাড়ি গেলেও বাজারজাত মিষ্টি না নিয়ে নিজের হাতে বানানো এই জিভে জল আনা ডেসার্ট নিয়ে যেতে পারেন।

Previous ArticleNext Article