Uncategorized, লাইফস্টাইল

কাজ দ্রুততার সাথে করার ৫টি উপায়

সংসার এবং প্রোফেশনাল লাইফ দুইটার চেপে নিজে ঘিরে রাখতে রাখে,দুইটার চাও অনেক সময় কাজে বিঘ্ন ঘটায় যেটার প্রভাব পরে প্রোফেশনাল লাইফে। অনেক কিছুতে মনোযোগ দিতে গিয়ে প্রায়ই আমরা ঠিকমতো অফিসের কাজ শেষ করতে পারি না। প্রতিটা মানুষের কাজের নির্দিষ্ট ধরন এক জনের থেকে অন্য জনের কিছুটা ভিন্নতর থাকে। আবার একেক রকম টাইমিং আছে। তাই এটাই স্বাভাবিক যে একেকজনের কাজ একেক সময় শেষ হবে। কিন্তু প্রোফেশনাল লাইফে আমাদের সবাই সেই ছাড় অথবা সুযোগ টা পায় না। অনেকের বস এক এক রকমের হয়ে থাকে আর নিজের বিজনেস অথবা কোনো সেক্টর নিজে হ্যান্ডেল করলেও সেখানে সব কিছুই এখনি চাই, এই মুহূর্তে চাই ,এমন মন মানুষিকতা থাকে।

tarokaloy_life_style

অন্যদের দেখা যায় কিভাবে মুহূর্তের মধ্যে কাজ শেষ করে ফেলছে! কিভাবে করা ,ওদের মধ্যে কি আছে যা আমার মধ্যে নিয়েই ? আমি কি তাহলে ওদের চেয়ে কাজে খারাপ?” আসলে ব্যাপারটা মোটেও তেমন নয়। আপনার কাজ করার ধরনে কিছু পরিবর্তন আনলে আপনিও পারবেন চটজলদি অফিসের কাজ শেষ করতে। মাত্র ৫টি উপায়ে আপনি কাজের ধরণ বদলে ফেলে আপনাও হতে পারে প্রোডাক্টিভিটি! চলুন তবে উপায়গুলো জেনে নেই!

tarokaloy_life_style

১: কাজের ধরন অনুযায়ী চার্ট তৈরি করুন:

একজন ভালো এম্প্লয়ের সবচেয়ে বড় গুনের একটা হল কাজকে একটি নিয়ম মোতাবেক সেট করে তৈরি করা। আপনাকে বুঝে নিতে হবে কোন কাজটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সেটা আগে ধরা। অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ কাজটা জটিল ও সময় সাপেক্ষ হতে পারে সেটা বুঝেই আপনার কাজের ধরন সেট করে নিতে হবে। প্রতিদিন অফিসে ঢুকেই আপনাকে টুডে লিস্টটা কাজ বুঝে সে অনুসারে সাজাতে হবে।

tarokaloy_life_style

২) নিজের কাজের ধরন বুঝুন:
একেক মানুষ একেকভাবে কাজ করে ,সবার কাজ করার ধরন কিন্তু এক নয়। আপনার খেয়াল করতে হবে , আপনি কিভাবে কাজ করলে আপনার মনোযোগ দিতে পারবেন। যা যা কাজের সময় আপনার মনোযোগে বাঁধা হয়ে দাঁড়ায়, সে সব কিছু নিজে দূরে রাখুন। আপনার ডেস্ক এমনভাবে সেট করুন যেন আপনার মনোযোগ দিতে সুবিধা হয়।

tarokaloy_life_style

৩) বড় কাজগুলো ছোট ছোট অংশে ভাগ করুন:
বড় কোন কাজ মানে যে জটিলতা টা নয়,কিন্তু আমরা মনে করি বড় মানেই বিশাল ঝামেলা, যেটা আমাদের কাছে জটিল মনে হয়, তখনই জেনে বা নিজের অজান্তে সেই কাজটা আমদের বিপাকে ফেলে । অনেক সময় কাজটা থেকে কিভবে নিজে দূরে রাখব সেটা চিন্তা করি। কিন্তু কাজটা আসলে ভয় না পেয়ে আমাদের উচিত বড় কাজকে ছোট ছোট অংশে ভাগ করে নেওয়া।আপনি সেটা ছোট অনেকগুলো পার্টে ভেঙ্গে সেগুলোতে ফোকাস করুন। একবার কাজের ছোট কোন অংশে ঢুকে গেলে বাকিটা আপনা আপনিই আপনার মধ্যে চলে আসবে। শুরু করাটাই সবচেয়ে বড় স্টেপ। আর এভাবেই নিজেই নিজের কাজের লাইফস্ হ্যাক তৈরি করে ফেলতে পারবেন।

tarokaloy_life_style

৪) কাজের মাঝামাঝি সময়ে বিরতি নিন:
এখনই একাধারে কাজ করে যাবেন না ,কেননা
টানা অনেক্ষণ কাজ করলে কাজের গুনগত মান খারাপ হয়ে যায়, এমনকি তাড়াতাড়ি ক্লান্তও চলে আসতে পারে যার ফলে আপনি ধীরে ধীরে কাজের প্রতি বিরক্ত হয়ে পড়েন। সেজন্য প্রয়োজন কাজে ফাঁকে ফাঁকে একটু পর পর ছোট বিরতির। এভাবে কাজ করলে, আপনি কাজে মনোযোগ হতে পারবেন।

tarokaloy_life_style

৫) কিছু শর্ট কাট উপায় গ্রহণ করুন :
অনেক সময় আমাদের মস্তিষ্ক যত তাড়াতাড়ি কোন ভাবনা ভাবে, আমাদের হাত ততো তাড়াতাড়ি সেটা লিখে নিতে পারে না। তাই নিজের টাইপিং স্পিড বাড়ান। কম্পিউটারের কিছু কমন শর্ট কাট শিখে নিন। এতে আপনার অনেক সময় বাঁচবে। এক কাজ বারবার না করে কিভাবে এই সময়টা বাঁচানো যায়, তার জন্য কী-বোর্ডের শর্ট কাট অপশনগুলোর সাথে নিজেকে অভ্যস্ত করে ফেলুন।

এইতো এই কিছু উপায় ফলো করে কাজের ধরন ও জীবনের কর্ম ক্ষেত্রে উন্নয়নের দিকে নিয়ে যেতে পারেন

Previous ArticleNext Article