বিনোদন, সেলিব্রিটি বার্তা

মারভেল স্টুডিও রচিত আভেঞ্জারস এন্ডগেম এর সাফলতার কারণ

পরিচালক এন্থনি রুস্শো জো রুস্শো ২০১৯ সালের সর্বাধিক আয়কৃত সিনেমা অ্যাভেঞ্জার্স: এন্ডগেম এর পরিচালনা করেন। মার্ভেল কমিকসের সুপারহিরো দল অ্যাভেঞ্জার্সের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে সুপারহিরো চলচ্চিত্রটি। যা প্রযোজিত হয়েছে মার্ভেল স্টুডিওস দ্বারা এবং পরিবেশিত হয়েছে ওয়াল্ট ডিজনি স্টুডিওস মোশন পিকচার্স দ্বারা। ২০১৫ সালের অ্যাভেঞ্জার্স: এজ অব আলট্রন-এর সিক্যুইল ধরে ২০১৮ সালে অ্যাভেঞ্জার্স ইনফিনিটি ওয়ার এবং ২০১৯ সালে অ্যাভেঞ্জার্স এন্ডগেম তৈরি করা হয়। ২০১৯ সালে ২৬ অক্টোবর অ্যাভেঞ্জার্স: এন্ডগেম বাংলাদেশে মুক্তি পায়।

ঢাকার বসুনধরা সিটি সিনে কমপ্লেক্স মুভির টিকেট কেনার জন্যে ভক্তরা সকাল ৭ থেকে বসুন্ধরার সিটি শপিং কমপ্লেক্স বাহিরে অপেক্ষা করছিল । গেট খোলার সাথে সাথে ভক্তদের ভিড় এবং আলোড়ন বাড়তে থাকে। সর্ব মোট ২৬ জন এই চলচ্চিত্রে অভিনয়ের কাজের দেখা গিয়েছে বিশেষ চরিত্রে । কিন্তু এর মধ্যে ১৭ জন বিশেষ অবদান রেখেছেন এই চলচ্চিত্রে তারা হলেন । ১. রবার্ট ডাউনি জুনিয়র (আয়রন ম্যান), ২.ক্রিস ইভানস (ক্যাপ্টেন আমেরিকা) , ৩.মার্ক রুফালো (হাল্ক ) , ৪.ক্রিস হেমসওর্থ (থর) , ৫.স্কার্লেট জোহ্যানসন (ব্ল্যাক উইডো ) , ৬. জেরেমি রেনার (হওক আয়) , ৭.ডানাই গুরিরা (ওকয়ই) , ৮.জন ফ্যাভ্রু (হ্যাপি হগান), ৯.টেসা থম্পসন (ভ্যালকরি) , ১০.কারেন গিলান (নেবিউলা) , ১১.বেনেডিক্ট ওয়ন্গ (ওয়ন্গ) , ১২.জোশ ব্রোলিন (থানোস) , ১৩. ব্রাডলি কুপার (রকেট রাকুন), ১৪. পল রাড (অ্যান্ট-ম্যান) , ১৫. গ্বেনেথ প্যাঁলট্র (পেপার পট্স), ১৬. ব্রি লারসন (ক্যাপ্টেন মার্ভেল), ১৭. ডন চিডল (ওয়ার মেশিন)

এখানে যেসব নাম উল্লেখ নেই, তারা এই ছবিতে বিশেষ ভাবে ভুমিকা রাখেন নি এবং তাদের অধিকাংশ আভেঞ্জারস ইনফিনিটি ওয়ার এ ছিল। যেমন টম হলান্ড (স্পাইডার ম্যান) , পল বেটানি (ভিশন) , এলিযাবেথ ওলসেন (স্কারলেট উইছ), ক্রিস প্রাট (স্টার লর্ড) এবং অন্যান্য।

অ্যাভেঞ্জার্স: এন্ডগেম চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করতে ৩৬৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয় করতে হয়েছিল এবং ইনফিনিটি ওয়ার ৩১৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বাজেটে ব্যয় করা হয়। ইনফিনিটি ওয়ার মুক্তি পাওয়া পর এক বছরের মধ্যে ২.০৪৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার উর্ধে আয় করেছে এখন অবদি। এবং এন্ডগেম আজ পর্যন্ত সর্বমোট ২.৮৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এর ঊর্ধ্বে আয় করে। বাংলাদেশ থেকে শুরু করে বিশ্বের সব দেশের মধ্যে রয়েছে অ্যাভেঞ্জার্স: এন্ডগেম এর ভক্ত। অ্যাভেঞ্জার্স: এন্ডগেম চলচ্চিত্রটিকে আইএমডিবি ১০ এর মধ্যে ৮.৫ স্টার রেটিং করেছে যা সম্পূর্ণ দর্শক তৃপ্তির মাধ্যমে ঘটেছে। চলচ্চিত্রটিতে আয়রন ম্যান এর অভিনয় দর্শকদের এতটাই মুগ্ধ হয়েছিল যে, এক একজন এর চোখে পানি চলে এসেছিল। এবং হল থেকে দর্শক আবেগপ্রবণ হয়ে বেরিয়ে আসছিল। এমনকি চলচ্চিত্রটি মুক্তি পাওয়া পর সামাজিক মাধ্যমে দেখা যায় চলচ্চিত্র নিয়ে কত রকম ইতিবাচক সমালোচনা।

চলচ্চিত্র নির্মাণ কালীন সময়ে অর্থাৎ এপ্রিল ২০১৫-তে, মার্ভেল ঘোষণা দেয় যে অ্যাভেঞ্জার্স: ইনফিনিট ওয়ারের উভয় অংশই “এন্থনি রুস্শো” এবং “জো রুস্শো” পরিচালনা করবেন। এমন কি অক্টোবর ২০১৪-তে, মার্ভেল এজ অব আলট্রনের একটি দুইটি অংশের ধারাবাহিক ঘোষণা দেয়া হয়েছিল এবং বলা শিরোনাম করা হয়েছিল যে,অ্যাভেঞ্জার্স: ইনফিনিট ওয়ার. পার্ট ১ মে ৪, ২০১৮-তে মুক্তি পাবে এবং সঙ্গে পার্ট ২ মে ৩, ২০১৯- তে মুক্তি দেয়া হবে। কিন্তু পরবর্তীতে জুলাই ২০১৬-তে, মার্ভেল চলচ্চিত্রটির শিরোনামটি মুছে দেয় হয় এবং সহজভাবে এটিকে শিরোনামহীন অ্যাভেঞ্জার্স চলচ্চিত্র হিসেবে উল্লেখ করা হয়। অ্যাভেঞ্জার্স: এন্ডগেম চলচ্চিত্রটি ২০১৭ সালে আগস্ট ১০-তে প্রধান ফটোগ্রাফি শুরু হয় পোস্টার ব্যানার তৈরি করার জন্য চলচ্চিত্রটি ইনফিনিটি ওয়ারের সাথে, আইম্যাক্স/এর্রি ২ডি ক্যামেরা ব্যবহার করে শুট করা হয়। ট্রেন্ট ওপালোচ ফটোগ্রাফির পরিচালক হিসেবে পরিবেশন করা হয়। এই চলচ্চিত্রে মাধ্যমে প্রথমবারের মতো ২ডি ক্যামেরা ব্যবহার করে একটি হলিউডে বৈশিষ্ট্য চলচ্চিত্র সম্পূর্ণভাবে আইম্যাক্স আধুনিক ক্যামেরার সাথে শুট করা হয়। যার ফলে এই চলচ্চিত্র সর্ব কালের সেরা চলচ্চিত্র হিসেবে সুনাম অর্জন করেছে।

অ্যাভেঞ্জার্স এন্ডগেম সর্বকালের সেরা টাইটানিক এবং আভাটার কেও বক্স অফিস এবং উপস্থাপন এর দিক দিয়ে হারিয়েছে। টাইটানিক এবং আভাটার উভই বিশ্ববিখ্যাত পরিচালক জেমস ক্যামিরন দ্বারা পরিচালিত হয়েছিল।

 

তারকালয়/২০/১০/১৯/রিয়া

Previous ArticleNext Article